Monday October 15, 2018

বজ্রপাতে বাবা-ছেলেসহ ১৫ জনের মৃত্যু

1205 বজ্রপাতে বাবা ছেলেসহ ১৫ জনের মৃত্যু

ঝড়-বৃষ্টির সময় বজ্রপাতে বাবা-ছেলেসহ ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। আজ রোববার সিরাজগঞ্জ, মাগুরা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, সুনামগঞ্জ ও নোয়াখালীতে এসব বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে সিরাজগঞ্জে বাবা-ছেলে সহ পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে।

কাজীপুর উপজেলার ডিগ্রি তেকানি গ্রামের মো. শামসুল হক (৫৫) ও তার ছেলে ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী আরমান হোসেন (১৪) বজ্রপাতে নিহত হয়েছে। সকাল ৯টার দিকে ক্ষেত থেকে বাদাম তোলার সময় বজ্রপাতে তারা মারা যান।

একই জেলায় কামারখন্দে বজ্রপাতে কাদের হোসেন (৩৭) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। আজ সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নিহতের বাড়ির পাশে মাঠে এ ঘটনা ঘটে।
ঝড়ের সময় আম কুড়াতে গিয়ে জেলার শাহজাদপুর উপজেলা ছয়আনি গ্রামের ফারুক খানের ছেলে নাবিল (১৭) ও রাশেদুল ইসলামের ছেলে পলিনের (১৫) মৃত্যু হয়। এ সময় আহত হয় আরো চারজন।

মাগুরা সদর অক্কুর পাড়া ও রায়গ্রাম এবং শালিখা উপজেলার বুনাগাতী গ্রামে বজ্রপাতে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলেন অক্কুর পাড়ার ভ্যানচালক শামীম, ব্লুগ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে আলম ও জয়পুরহাটের মনপুরা এলাকার আলম মিয়ার ছেলে মেহেদী। মাগুরা থেকে শ্রীপুরের দিকে যাওয়ার সময় ভ্যানচালক শামীম, মাগুরা থেকে বাড়ি ফেরার পথে আলম এবং শালিখার বুনাগাতী এলাকায় মোবাইল ফোন টাওয়ারে কাজ করার সময় বজ্রপাতে মেহেদীর মৃত্যু হয়।

নওগাঁর সাপাহার উপজেলার শিমলডাঙ্গা রামাশ্রম গ্রামে  বজ্রপাতে  মোছা. সোনাভান (২৪) নামে এক  গৃহবধূ মারা গেছেন। এ ঘটনার সময় আরো তিনজন আহত হয়েছেন। সোনাভান ওই গ্রামের রুবেল হোসেনের স্ত্রী। আহতরা হলেন, নিহতের স্বামী রুবেল হোসেন (২৮), প্রতিবেশী  সালেহা বিবি (৪২) ও রাজু হোসেন (১২)।

নোয়াখালীর মাইজদী ও সেনবাগ উপজেলায় বজ্রপাতে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো দুজন। নিহতরা হলেন- নোয়াখালী পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের লক্ষ্মীনারায়ণপুর গ্রামের সোহেল রানার ছেলে পিয়াল (১৩) ও ভোলার তমিজ উদ্দিন উপজেলার সোনাপুর গ্রামের মো. রজন মিয়ার ছেলে শাহীন (২৬)।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় বজ্রপাতে আব্দুর রহিম (৫০) নামে এক শ্রমিক নিহত হয়েছেন। রোববার সকাল সাড়ে ৯টায় মোগড়া ইউনিয়নের দরুইন গ্রামের তাজুল ইসলামের ধানের জমিতে এই বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। পরে ধানের জমি থেকে তার লাশ উদ্ধার করে স্থানীয় লোকজন। আব্দুর রহিম মৌলভীবাজারের জামবুড়া ছড়া গ্রামের বাসিন্দা।

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার মাটিকাটা এলাকায় বজ্রপাতে জাফরুল ইসলাম (২০) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো পাঁচজন।

সুনামগঞ্জে বজ্রপাতে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। নিহত কৃষকের নাম লিটন মিয়া (৩০)। তিনি সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামে মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান মিয়ার ছেলে। এছাড়াও রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলায় বজ্রপাতে মনছুরা বেগম (৩৫) নামের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। মনছুরা বেগম বাঘাইছড়ি উপজেলার মুসলিম ব্লক এলাকার বাসিন্দা বলে জানিয়েছেন বাঘাইছড়ি থানা পুলিশ।

Filed in: বিবিধ