Wednesday April 24, 2019

ঢাকাকে হারিয়ে তৃতীয় স্থানে উঠে এলো কুমিল্লা

134 ঢাকাকে হারিয়ে তৃতীয় স্থানে উঠে এলো কুমিল্লা

এবারের বিপিএলে শুরু থেকে দারুণ সাফল্যের ধারায় ছিল ঢাকা ডায়নামাইটস। তারাই কিনা টানা ২ হারের তেতো স্বাদ পেল ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে! ঢাকায় ফিরতি পর্বে চিটাগং ভাইকিংসের পর তাদের বিপক্ষে জিতেছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। মঙ্গলবার ৭ রানের এ জয়ে সমান ১০ পয়েন্টে ঢাকাকে ধরে ফেলেছে কুমিল্লা, তিন নম্বরে তারা। দুটি দলই সমান ৮টি ম্যাচ খেলেছে। রান রেটে এগিয়ে থাকায় শীর্ষে রয়েছে ঢাকা। তবে এক ম্যাচ কম খেলে একই পয়েন্টে দ্বিতীয় স্থানে চিটাগং।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে কুমিল্লার শুরুটা ভালো হয়নি। দুই অঙ্ক ছোঁয়ার আগেই ফিরেছেন এনামুল হক বিজয় ও ইমরুল কায়েস। ২৭ রানে ২ উইকেট হারানোর পর দলকে ৭৮ পর্যন্ত টেনে নেন তামিম ইকবাল ও শামসুর রহমান। ২৯ বলে ৩৪ রান করা তামিমকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন সাকিব। বাঁহাতি স্পিনার নিজের পরের ওভারে এসে তিন বলের মধ্যে তুলে নেন শহীদ আফ্রিদি (৮ বলে ১৬) ও শামসুরের (২৫ বলে ৪৮) উইকেট। এর মধ্যে শামসুরকে ফিরিয়ে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে বিপিএলে ১০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করেন সাকিব। ১১২ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর কুমিল্লার স্কোর দেড়শ পেরিয়েছে মূলত থিসারা পেরেরার ১২ বলে ৩ ছক্কায় ২৬ রানের ক্যামিওতে। সাকিব চার ওভারে ২৪ রানে ৩টি এবং রুবেল ২৬ ও রাসেল ২৭ রানে নেন ২টি করে উইকেট। লক্ষ্য তাড়ায় একাদশে ফেরা হজরতউল্লাহ জাজাই ফিরেছেন প্রথম ওভারেই ব্যক্তিগত ১ রানে। দুই অঙ্কে ছুঁতে পারেননি তিনে নামা রনি তালুকদারও। জাজাইকে ফিরিয়েছেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, ওয়াহাব রিয়াজের শিকার রনি। সুনিল নারিন ১৮ বলে ২০ রান করে ফেলেছিলেন, এরপরই তিনি ফেরেন রান আউটে কাটা পড়ে। ঢাকার স্কোর তখন ৩ উইকেটে ৩০। খানিক বাদে ডারউইস রসুল ১৫ বলে ১৯ রান করে ফিরলে স্কোরটা হয়ে যায় ৪ উইকেটে ৫০! এর পরই ম্যাচের রঙ পাল্টে দেন রাসেল। সাইফউদ্দিন, ওয়াহাব, থিসারা, লিয়াম ডসন- সবাইকে বিশাল সব ছক্কায় উড়ান ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান। ১৫তম ওভারে থিসারাকে আবার উড়াতে গিয়ে শেষ হয় রাসেলের ২৪ বলে ৫ ছক্কা ও ২ চারে ৪৬ রানের ঝোড়ো ইনিংস। তাতে ভাঙে ২৯ বলে ৬২ রানের জুটিও। শেষ ৫ ওভারে ঢাকার দরকার ছিল ৪১ রান। ১৬তম ওভারে সাকিব রান আউট হতে গিয়ে বেঁচে গিয়েও শেষ বলে ফেরেন আফ্রিদির ফুলটস উড়াতে গিয়ে (১৯ বলে ২০)। পরের ওভারে থিসারার তিন বলের মধ্যে শুভাগত হোম ও নুরুল হাসান সোহানের বিদায়ে কার্যত ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় ঢাকা। শেষ ওভারে ১৯ রানের প্রয়োজনে ঢাকা তুলতে পারে ১১ রান। তিন ওভারে ১৪ রানে ৩ উইকেট নিয়ে কুমিল্লার সেরা বোলার থিসারা। আফ্রিদি ৪ ওভারে ১৮ রানে নেন ২ উইকেট।

Filed in: খেলাধুলা